ইসলাম ও ইরানের পারস্পরিক অবদান

ইসলাম ও ইরানের পারস্পরিক অবদান0%

ইসলাম ও ইরানের পারস্পরিক অবদান লেখক:
: এ.কে.এম. আনোয়ারুল কবীর
প্রকাশক: কালচারাল কাউন্সেলরের দফতর ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরান দুতাবাস -
বিভাগ: ইতিহাস

ইসলাম ও ইরানের পারস্পরিক অবদান

লেখক: শহীদ অধ্যাপক মুর্তাজা মুতাহ্হারী
: এ.কে.এম. আনোয়ারুল কবীর
প্রকাশক: কালচারাল কাউন্সেলরের দফতর ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরান দুতাবাস -
বিভাগ:

ভিজিট: 43425
ডাউনলোড: 1850

ইসলাম ও ইরানের পারস্পরিক অবদান
বইয়ের বিভাগ অনুসন্ধান
  • শুরু
  • পূর্বের
  • 47 /
  • পরের
  • শেষ
  •  
  • ডাউনলোড HTML
  • ডাউনলোড Word
  • ডাউনলোড PDF
  • ভিজিট: 43425 / ডাউনলোড: 1850
সাইজ সাইজ সাইজ
ইসলাম ও ইরানের পারস্পরিক অবদান

ইসলাম ও ইরানের পারস্পরিক অবদান

লেখক:
প্রকাশক: কালচারাল কাউন্সেলরের দফতর ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরান দুতাবাস -
বাংলা

চৌদ্দশ’ বছর পূর্বে যখন ইসলাম আমাদের এ দেশে আসে তখন তা কিরূপ পরিবর্তন সাধন করে ? এ পরিবর্তনের ধারা কোন্ দিকে ছিল ? ইসলাম ইরান হতে কি গ্রহণ করেছে ও ইরানকে কি দিয়েছে ? ইরানে ইসলামের আগমন অনুগ্রহ ছিল নাকি বিপর্যয় ? বিশ্বের অনেক জাতিই ইসলামকে গ্রহণ করেছিল ও ইসলামের সেবায় আত্মনিয়োগ করেছিল। তারা ইসলামের শিক্ষা প্রচার ও প্রসারে ভূমিকা রেখেছিল এবং তাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টার ফলে‘ ইসলামী সভ্যতা’ নামে এক বৃহৎ ও আড়ম্বরপূর্ণ সভ্যতার সৃষ্টি হয়। এ সভ্যতার সৃষ্টিতে ইরানীদের অবদান কতটুকু ? এ ক্ষেত্রে ইরানীদের অবস্থান কোন্ পর্যায়ে ? তারা কি এ ক্ষেত্রে প্রথম স্থান অধিকার করতে সক্ষম হয়েছিল ? ইসলামের প্রতি তাদের এ অবদান ও ভূমিকার পেছনে কোন্ উদ্দীপনা কাজ করেছিল ? অত্র গ্রন্থের আলোচনাসমূহ এ প্রশ্নগুলোর সঠিক উত্তর পেতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে বলে আমার বিশ্বাস।

ইরানীদের শিয়া প্রবণতা

অধিকাংশ ইরানী সাফাভী শাসনামলের পরবর্তী সময়ে শিয়া হয়েছেন। অবশ্য এ বিষয়ে সন্দেহ নেই ,অন্য সকল স্থান অপেক্ষা ইরানে শিয়া মাযহাবের উপযোগী পরিবেশ বিরাজ করছিল। শিয়া মাযহাব যেরূপ মন্থর গতিতে ইরানে প্রবেশ করেছে এবং গভীরে প্রবেশ করেছে তা অন্য কোথাও হয় নি। সময়ের আবর্তনে ইরানীদের শিয়া মাযহাব গ্রহণের প্রস্তুতি ত্বরান্বিত হয়েছে। যদি ইরানীদের হৃদয়ে শিয়া প্রবণতার বীজ রোপিত না হতো তাহলে সাফাভিগণ শাসন ক্ষমতা গ্রহণের মাধ্যমে তাদের শিয়া ও আহলে বাইতের অনুসারী করতে পারত না।

বাস্তবতা হলো ইরানীদের শিয়া ও মুসলমান হওয়ার কারণ একই। ইরানীরা ইসলামকে তাদের আত্মার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ পেয়েছে এবং ইসলাম তাদের হারানো বস্তুর সন্ধান দিয়েছে। ইরানীরা প্রকৃতিগতভাবে যেমন সচেতন তেমনি ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির দিক হতেও উজ্জ্বল অতীতের অধিকারী ছিল। তাই অন্যান্য জাতি হতে ইসলামের প্রতি অধিকতর সেবা দান করতে পেরেছে। ইরানের জনসাধারণ অন্যান্য জাতি অপেক্ষা ইসলামের প্রকৃত তাৎপর্য ও প্রাণকে অধিক অনুধাবনে সক্ষম হয়েছিল। এ কারণেই রাসূল (সা.)-এর আহলে বাইতের প্রতি তাদের ভালবাসা অন্যদের হতে বেশি ছিল এবং শিয়া মাযহাব তাদের মাঝে অন্যদের অপেক্ষা অধিক প্রসার লাভ করেছিল। ইরানীরা ইসলামের প্রাণকে নবীর আহলে বাইতের নিকট হতে পেয়েছিল এবং তাদের আত্মিক প্রশ্নাবলীর উত্তর কেবল তাঁরাই দান করতে পেরেছিলেন বলে তাঁদের প্রতি আকৃষ্ট হয়েছে।

যে বিষয়টি ইরানীদের ইসলামের প্রতি সবচেয়ে বেশি আকর্ষণ করেছিল তা হলো ইসলামের সাম্য ও ন্যায়বিচার। শতাব্দীকাল হতে ইরান এর অভাব অনুভব করছিল এবং এর জন্য আকাক্সিক্ষত ছিল। তারা লক্ষ্য করেছিল মুসলমানদের যে অংশটি ইসলামের সাম্য ও ন্যায়ের প্রতি সবচেয়ে নিবেদিত এবং জাতি ,বংশের ঊর্ধ্বে উঠে এর প্রয়োগে সবচেয়ে তৎপর তাঁরা হলেন নবীর পবিত্র আহলে বাইত । নবীর আহলে বাইত অনারবদের নিকট ইসলামের ন্যায়পরায়ণতার প্রতীক ও আশ্রয়স্থল হিসেবে বিবেচিত হয়েছিলেন।

আমরা যখন কোন কোন খলীফার কর্মকাণ্ডে আরব জাতীয়তার ভিত্তিতে আরব-অনারবদের মধ্যে পার্থক্য করার প্রবণতা লক্ষ্য করি তখন দেখি আলী ইবনে আবি তালিব (আ.) ইসলামের সাম্য ও ন্যায়ের ভিত্তিতে এ বৈষম্যের বিরোধিতায় নেমেছেন। এটি এ সত্যকেই প্রমাণ করে।

বিহারুল আনওয়ার গ্রন্থের নবম খণ্ডের 124 পৃষ্ঠায় আল কাফী গ্রন্থের উদ্ধৃতি দিয়ে বর্ণিত হয়েছে :

একদিন একদল মাওয়ালী (অনারব মুক্ত দাস শ্রেণী) হযরত আলী (আ.)-এর নিকট এসে আরবদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলল: রাসূল (সা.) বায়তুল মাল বণ্টন ও বিবাহের ক্ষেত্রে কখনই আরব ও অনারবের মধ্যে পার্থক্য করতেন না। তিনি তাদের মধ্যে সমানভাবে বায়তুল মাল বণ্টন করতেন এবং অনারব সালমান ,বেলাল ও সাহিবকে আরব নারীদের সঙ্গে বিয়ে দিয়েছেন ,অথচ এখন আরবরা তাদের সঙ্গে আমাদের পার্থক্য করছে। হযরত আলী আরবদের নিকট গিয়ে এ বিষয়ে কথা বললেন ,কিন্তু তাতে কোন লাভ হলো না। তিনি তখন চীৎকার করে বললেন: অসম্ভব ,অসম্ভব। অতঃপর তিনি তাদের নিকট হতে অসন্তুষ্ট অবস্থায় ফিরে এসে মাওয়ালীদের জানালেন: অত্যন্ত দুঃখজনক ,এরা তোমাদের সঙ্গে সাম্যের নীতি গ্রহণে ইচ্ছুক নয়। তারা একজন মুসলমান হিসেবে তোমাদের সম অধিকার দানে আগ্রহী নয়। আমি তোমাদের পরামর্শ দেব ব্যবসার পথ ধরার। আশা করি আল্লাহ্ তোমাদের ওপর বরকত অবতীর্ণ করবেন।

মুয়াবিয়া ইবনে আবু সুফিয়ান ইরাকের প্রদেশিক শাসনকর্তা যিয়াদ ইবনে আবিহ্-এর নিকট লিখিত পত্রে বলেন , ইরানী মুসলমানদের হতে সাবধান থাক। কখনই তাদের আরবদের সম মর্যাদা দান কর না। আরবদের তাদের নারী গ্রহণের অধিকার থাকলেও তাদের আরব নারী গ্রহণের অধিকার নেই। আরবরা তাদের সম্পদের উত্তরাধিকারী হলেও তারা আরবদের সম্পদের উত্তরাধিকারী হবে না। যতদূর সম্ভব তাদের কম মজুরী ও নিম্নমানের কাজ দাও। আরবদের উপস্থিতিতে তাদের জামায়াতের ইমাম হতে দিও না। জামায়াতের প্রথম সারিতে যেন তারা না দাঁড়ায়। তাদেরকে বিচারক ও সীমান্ত প্রহরী হিসেবে নিয়োগ দান কর না।

কিন্তু এর বিপরীতে হযরত আলীর নিকট একজন আরব ও একজন ইরানী মহিলা বিচার নিয়ে আসলে তিনি তাদের মধ্যে সমভাবে বিচার করেন। এতে আরব মহিলা ক্ষিপ্ত হলে হযরত আলী মাটি হতে দু মুঠো মাটি উঠিয়ে কিছুক্ষণ এর দিকে তাকিয়ে থেকে বললেন , যতই চিন্তা করি তবু এ দু মুঠো মাটির মধ্যে আমি কোন পার্থক্য দেখি না।

হযরত আলী তাঁর এ তুলনামূলক কর্মের মাধ্যমে রাসূলুল্লাহ্ (সা.)-এর প্রসিদ্ধ এ হাদীসের প্রতি ইঙ্গিত করেছেন :

كلّهم لآدم و آدم من تراب لا فضل لعربيّ على عجميّ إلّا بالتّقوى

সকলেই আদম হতে এবং আদম মাটি হতে সৃষ্ট হয়েছেন। আরবদের অনারবদের ওপর কোন শ্রেষ্ঠত্ব নেই ,কারণ শ্রেষ্ঠত্বের মানদণ্ড তাকওয়া ও খোদাভীতি। জাতি ,বংশ ,রক্ত সম্পর্ক দিয়ে শ্রেষ্ঠত্ব বিচার করা যায় না। যখন সকলেই আদমের বংশের ,আর তিনি মাটি হতে সৃষ্ট হয়েছিলেন তখন রক্ত ,বর্ণ ও বংশ গৌরবের কোন স্থান নেই।

সাফিনাতুল বিহার -এর 2য় খণ্ডের 692 পৃষ্ঠায় ওয়ালী ধাতুর অধ্যায়ে বলা হয়েছে :

একদিন হযরত আলী (আ.) মিম্বারে জুমআর নামাজের খুতবা দিচ্ছিলেন। আরবের প্রসিদ্ধ নেতা আশআস ইবনে কাইস কিন্দী তাঁকে উদ্দেশ্য করে বলল: হে মুমিনদের নেতা! এই রক্তিম বর্ণের লোকেরা (ইরানীরা) আপনার সম্মুখে আমাদের ওপর প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে ,অথচ আপনি কিছু করছেন না। এ কথা বলে রাগত স্বরে বলল: আজকে আমি দেখাব আরবরা কি করতে পারে। হযরত আলী এ কথা শুনে বললেন , এই স্ফীত উদররা দিনের বেলা যখন নরম বিছানায় ঘুমায় তখন ইরানী ও মাওয়ালীরা আল্লাহর জন্য প্রখর রৌদ্রের নীচে কাজ করে। অথচ এই আরামপ্রিয়রা চায় আমি এই পরিশ্রমী লোকদের বিতাড়িত করে জালিমের অন্তুর্ভুক্ত হই। সেই আল্লাহর শপথ ,যিনি বীজ অঙ্কুরিত ও মানুষকে সৃষ্টি করেছেন ,আমি রাসূল (সা.)-কে বলতে শুনেছি: প্রথম যুগে তোমরা ইসলামের জন্য ইরানীদের ওপর অস্ত্র চালাবে এবং পরবর্তী যুগে ইরানীরা তোমাদের ওপর ইসলামের স্বার্থে তরবারী চালাবে।

সাফিনাতুল বিহার -এর 2য় খণ্ডের 693 পৃষ্ঠায় উল্লিখিত হয়েছে :

মুগীরা ইবনে শোবা প্রায়শঃই হযরত আলী ও হযরত উমরের মধ্যে তুলনা করে বলতেন: আলী অনারব মাওয়ালীদের প্রতি দয়ার্দ্র ও সহানুভূতিশীল ছিলেন। এর বিপরীতে খলীফা উমর তাদের অপছন্দ করতেন।

এক ব্যক্তি ইমাম সাদিক (আ.)-কে জিজ্ঞেস করল , মানুষ বলাবলি করে ,কেউ খাঁটি আরব ও খাঁটি দাস না হলে নিম্নশ্রেণীর।

সে বলল , যার পিতা-মাতা উভয়েই দাস ছিল।

ইমাম বললেন , খাঁটি দাসের শ্রেষ্ঠত্ব কি জন্য ?

সে বলল , নবী (সা.) যেহেতু বলেছেন প্রত্যেক জাতির দাসরা তাদের জাতিরই অন্তুর্ভুক্ত সেহেতু আরবদের খাঁটি দাস আরবদেরই অন্তর্ভুক্ত এবং সেই শ্রেষ্ঠত্বের দাবি করতে পারে যে খাঁটি আরব অথবা আরবদের অধীনস্থ খাঁটি দাস।

ইমাম বললেন , তুমি শোন নি রাসূল (সা.) বলেছেন আমি তাদের অভিভাবক যাদের কোন অভিভাবক নেই। আমি আরব-অনারব সকলের অভিভাবক। নবী যাদের অভিভাবক তারা কি নবীর জাতির অন্তর্ভুক্ত নয় ?

ইমাম আরো বললেন , এ দু য়ের মধ্যে কে উত্তম ? যে নবীর সঙ্গে সংযুক্ত নাকি যে মূর্খ ও অত্যাচারী এক আরবের সঙ্গে সংযুক্ত যার মূত্রত্যাগের সভ্যতাটুকুও জানা নেই ?

অতঃপর বললেন , যে ব্যক্তি সন্তুষ্ট চিত্তে স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছে সে ঐ ব্যক্তি হতে উত্তম যে ভয়ে ইসলাম গ্রহণ করেছে। এই আরবরা ভয়ে মৌখিকভাবে ইসলাম গ্রহণ করেছে ,অপর দিকে ইরানীরা নিজ ইচ্ছায় সন্তুষ্ট চিত্তে ইসলামে প্রবেশ করেছে ? 38

এ ধরনের ঘটনাসমূহ প্রমাণ করে তৎকালীন সময়ে রাজনৈতিকভাবে আরব ও অনারবদের মধ্যে পার্থক্য করা হতো এবং নবীর আহলে বাইতের পবিত্র ইমামগণ অহরহ এরূপ রাজনীতির বিরোধিতা করতেন বলে ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়। এ কারণেই ইরানীরা একদিকে ইসলামের প্রকৃত প্রাণ ও বাস্তবতার প্রতি অধিকতর লক্ষ্য রেখেছিল এবং অন্য দিকে অন্যান্য জাতি হতে অধিকতর বৈষম্যের শিকার হওয়ায় নবীর আহলে বাইতের পক্ষাবলম্বন করেছিল।

পৃষ্ঠপোষকতার নামে অমার্যাদা

সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হলো কিছু লোক ইরানী জাতীয়তা সংরক্ষণের নামে ইরান জাতির প্রতি সর্বাধিক অমর্যাদা করছেন।

কখনও তাঁরা বলেন , ইরান জাতি সর্বাত্মকভাবে চেয়েছিল তাদের প্রাচীন ধর্মকে সংরক্ষণ করতে। কিন্তু সকল প্রকার ইতিবাচক ক্ষমতা ও মর্যাদা এবং বিশাল ভূমি ও চৌদ্দ কোটি মানব শক্তির অধিকারী হওয়া সত্ত্বেও তারা পঞ্চাশ বা ষাট হাজার আরবের নিকট পরাস্ত হয়েছিল।

যদি এ কথা সত্য হয়ে থাকে তবে এর চেয়ে অপমান আর কি হতে পারে ?

কখনও তাঁরা বলেন , ইরানীরা ভয়ে তাদের ধর্মীয় রীতি ও আচার পরিত্যাগে বাধ্য হয়। যদি এমনটিই হয় তবে ইরানীরা জাতিসমূহের মধ্যে সর্বনিকৃষ্ট। যে জাতি বিজেতা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে আন্তরিক বিশ্বাসকেও সংরক্ষণে সক্ষম নয় সে জাতি মানবীয় গুণশূন্য।

কখনও তাঁরা বলেন , ইরানী জাতি চৌদ্দ শতাব্দী ধরে আরবদের জোয়ালের নীচে আছে যদিও আরবদের সামরিক কর্তৃত্ব একশ বছরের বেশি স্থায়ী ছিল না। কিন্তু চৌদ্দ শতাব্দী পূর্বে ইরানীদের যে মেরুদণ্ড ভেঙ্গেছিল তা সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি।

কিরূপ উত্তম এ দুর্বলতা ও অক্ষমতা! যখন আফ্রিকার অর্ধবর্বর অনেক জাতি কয়েক শতাব্দীর ইউরোপীয় সাম্রাজ্যবাদীদের শেকলগুলো একের পর এক ছিন্ন করে নিজেদের মুক্ত করছে তখন দীর্ঘ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের উত্তরাধিকারী এক জাতি মরুভূমির কিছু গোত্রের হাতে পরাস্ত হওয়ার কিছু দিন পরই স্বাধীনতা লাভ করা সত্ত্বেও চৌদ্দশ বছর ধরে সেই শেকলের বন্ধনে আড়ষ্ট। এমনকি শতাব্দীকাল পূর্বের বিজেতার ভাষা ,আচার ও ধর্মীয় রীতি তাদের নিকট অপছন্দীয় হওয়ার পরেও প্রতিদিন তাদের সামাজিক ,ব্যক্তিগত ও সামগ্রিক জীবনের গভীর হতে গভীরে প্রবেশ করছে। কি আশ্চর্য!

কখনও তাঁরা বলেন , ইরানীরা তাদের প্রাচীন ধর্ম ও আচার-বিশ্বাসকে সংরক্ষণের লক্ষ্যেই শিয়া মতবাদের ছায়ায় আশ্রয় নিয়েছিল এবং এই দীর্ঘ সময় ধরে বাহ্যিকভাবে মুনাফিকের ন্যায় ইসলামকে মেনে চলছিল। তাদের মুসলমান হওয়ার দাবি ও ইসলামের জন্য তাদের সকল অবদান মিথ্যা ভান ছিল। তারা চৌদ্দ শতাব্দী ধরে মিথ্যা বলছে ,মিথ্যা লিখছে ও কৃত্রিম আচরণ করেছে। কি চমৎকার কাপুরুষ ও অমর্যাদাশীল এ জাতি!

কেউ কেউ আবার বলে থাকেন , এত সব আত্মত্যাগ ও ঝোঁকের মূলে ইসলামের সত্যকে অনুধাবন এবং শিয়া মাযহাবের সঙ্গে ইরানীদের আত্মিক মিলের বিষয়টি ছিল না ;বরং একটি বিবাহের রহস্য কার্যকর ছিল এবং এ জাতি একটি বিবাহের কারণেই তাদের জীবন পদ্ধতিকে পরিবর্তন করেছিল । কিরূপ অন্তঃসারশূন্য এ জাতি!

আবার অনেকে বলেন , ইরানীরা প্রথমে চেয়েছিল তাদের ধর্ম ও শাসন ব্যবস্থার সংরক্ষণে অংশ নিতে ,কিন্তু পরে সিদ্ধান্ত নেয় বিষয়টিকে তলিয়ে দেখায়। কি ভীতু ও কাপুরুষ এ জাতি!

এই সকল ব্যক্তির দৃষ্টিভঙ্গি বিশ্লেষণে বোঝা যায় ,জাতিসমূহের মধ্যে সবচেয়ে নিকৃষ্ট হলো ইরানী। কারণ ইরানীরা ভয়ে নিজস্ব প্রচীন লিখন পদ্ধতি পরিত্যাগ করে আরবী লিখন পদ্ধতি গ্রহণ করে ,ফার্সী ভাষার ওপর আরবী ভাষাকে প্রধান্য দেয়া শুরু করে ,আরবদের ভয়ে আরবী ভাষার ব্যাকরণবিধি তৈরি করে ও আরবী ভাষায় বই লেখা শুরু করে।

আরব শাসকরা চলে যাওয়ার পরও তাদের এ ভীতি থেকে যায় এবং তারা তাদের সন্তানদের আরবী ভাষা শিক্ষা দেয়। তাদের সাহিত্যে আরবী ভাষার অনুপ্রবেশ ঘটায় এবং ইসলামকে গ্রহণ করে প্রাচীন ধর্মকে জলাঞ্জলি দেয়। সবচেয়ে বড় কথা হলো তারা তাদের প্রিয় ধর্মকে (তাদের ভাষায়) রক্ষার কোন প্রচেষ্টাই গ্রহণ করেনি।

মোট কথা ,এই সকল বিশ্লেষকের মত গত চৌদ্দ শতাব্দী ধরে ইরানে সংঘটিত ঘটনাসমূহে এ জাতির অক্ষমতা ,দ্বিমুখিতা ,কাপুরুষতা ,অমর্যাদা ,মূল্যহীনতা ও নীচতাকেই প্রমাণ করে। সে সাথে স্পষ্ট করে যে ,এ জাতির মধ্যে স্বাধীন ইচ্ছা ক্ষমতা ,ঈমান ,সত্যাকাঙ্ক্ষা ও সত্য নিরূপণ ক্ষমতা অনুপস্থিত। এই সকল মূর্খ লেখক ও বিশ্লেষকের এ সব মন্তব্য সত্যপরায়ণ ও সম্ভ্রান্ত ইরানী জাতির প্রতি অসম্মান ছাড়া কিছুই নয়।

প্রিয় পাঠকবৃন্দ ,এ গ্রন্থ প্রমাণ করবে এ সকল কিছুই ইরান ও ইরানী জাতির প্রতি মিথ্যা অপবাদ। এ জাতি যা করেছে স্বেচ্ছায় ও স্বাধীন মনোনয়নের মাধ্যমে করেছে। ইরানীরা যোগ্য ,অক্ষম নয় ;সত্যপরায়ণ ,মিথ্যাবাদী নয় ;মুমিন ,মুনাফিক নয় ;সাহসী ,ভীতু ও কাপুরুষ নয় ;সত্যাকাঙ্ক্ষী ,মিথ্যার আশ্রয় গ্রহণকারী নয় ;মূল ও শেকড়ের অধিকারী ,মূলহীন নয়। ইরানীরা ভবিষ্যতেও তার মৌলিকত্ব সংরক্ষণ করবে এবং ইসলামের সঙ্গে তার চিরন্তন বন্ধনকে দৃঢ় ও মজবুত করবে।

দ্বিতীয় ভাগ

ইরানে ইসলামের অবদান