কোরআন ও হাদীসের আলোকে আহলে বাইত (আঃ)-ই নাজাতের তরী বা ত্রাণকর্তাƒ

কোরআন ও হাদীসের আলোকে আহলে বাইত (আঃ)-ই নাজাতের তরী বা ত্রাণকর্তাƒ0%

কোরআন ও হাদীসের আলোকে আহলে বাইত (আঃ)-ই নাজাতের তরী বা ত্রাণকর্তাƒ লেখক:
প্রকাশক: -
বিভাগ: ধর্ম এবং মাযহাব

কোরআন ও হাদীসের আলোকে আহলে বাইত (আঃ)-ই নাজাতের তরী বা ত্রাণকর্তাƒ

লেখক: মোহাম্মাদ নাজির হোসাইন
প্রকাশক: -
বিভাগ:

ভিজিট: 2123
ডাউনলোড: 437

কোরআন ও হাদীসের আলোকে আহলে বাইত (আঃ)-ই নাজাতের তরী বা ত্রাণকর্তাƒ
বইয়ের বিভাগ অনুসন্ধান
  • শুরু
  • পূর্বের
  • 11 /
  • পরের
  • শেষ
  •  
  • ডাউনলোড HTML
  • ডাউনলোড Word
  • ডাউনলোড PDF
  • ভিজিট: 2123 / ডাউনলোড: 437
সাইজ সাইজ সাইজ
কোরআন ও হাদীসের আলোকে আহলে বাইত (আঃ)-ই নাজাতের তরী বা ত্রাণকর্তাƒ

কোরআন ও হাদীসের আলোকে আহলে বাইত (আঃ)-ই নাজাতের তরী বা ত্রাণকর্তাƒ

লেখক:
প্রকাশক: -
বাংলা

উন্মুক্ত চিন্তা-ƒচতনা, নির্মোহ মন-মানসিকতা, জ্ঞানগর্ভ যুক্তি, মাযহাবগত আকীদার অন্ধবিশ্বাস ও পক্ষপাতহীন দৃষ্টিভঙ্গি মুক্ত মানসিকতা নিয়ে, বিচার-বিশ্লেষণের মাধ্য„ম গ্রন্থটি অধ্যয়নের অনুরোধ করা গেল। আশা রাখছি যা “সিরা„তে মুস্তাকি„মের” পথ অনুসন্ধা„নে সহায়তা কর„বে। আমার এ গ্রন্থ সত্যাকাঙ্ক্ষী ন্যায়পরায়ন ব্যক্তির হা„ত সমর্পিত „হোক আল্লাহ রাব্বুল আলামী„নের নিকট এ প্রার্থনাই করছি।

আল্লাহ রাসূলে এবং উলিল আমরে র আনুগত্য

হে ঈমানদারগণ! আল্লাহর আনুগত্য কর , রাসূলের আনুগত্য কর এবং উলিল আমরের ” ...। (সূরা-নিসা , আয়াত-৫৯) ।

উক্ত আয়াতের ব্যাখ্যায় মুফাস্সিরগণ ভিন্ন ভিন্ন মত প্রকাশ করেছেন। কেউ উলিল আমর ” -কে রাষ্ট্রনায়ক , কেউ আবার বিচারক হিসাবে মত প্রকাশ করেছেন , (তাফসীরে মারেফুল কোরআন) ; মূলতঃ এতে আহলে বাইতের মাসুম ইমামদের কথা বলা হয়েছে। কেননা আল্লাহ্ যেখানে নিজের সঙ্গে রাসূল (সাঃ)-এর আনুগত্যের হুকুম দিচ্ছেন ; সেখানে উলিল আমরের আনুগত্যও সকল বান্দাদের উপর ওয়াজিব ঘোষণা করেছেন। এখান উলিল আমরকে আল্লাহ্ ও রাসূলের প্রতিনিধি ঘোষণা করেছেন। তাঁকে অবশ্যই মাসুম (নিষ্পাপ) হতে হবে। আল্লাহ কখনো ভ্রান্তিযুক্ত মানুষকে তার প্রতিনিধি নিযুক্ত করেন না , এটা সাধারণ বিবেকবান ব্যক্তিও বুঝতে পারে। আহলে বাইত (আঃ)-এর বারো ইমাম ব্যতিত , অন্য কারো সম্পর্কে কেউ এই দাবী করতে পারে না ; যে , তারাও ভ্রান্তি মুক্ত ছিলেন , এছাড়া আল্লাহর এই নির্দেশ কোন কাল , সময় বা কোন ব্যক্তির মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। এটা সব সময়ের জন্য , এমনকি কেয়ামত পর্যন্ত এই নির্দেশ চলতে থাকবে। এখন দেখতে হবে , যারা ভ্রান্তিযুক্ত রাষ্ট্রনায়ক , কিংবা বিচারককে আনুগত্য করার মত প্রকাশ করেছেন , তারা মুসলমানদেরকে মহা বিপদে ফেলে দিয়েছেন , কারণ দুনিয়াতে অনেক দেশ আছে , যেখানে খ্রিস্টান , ইহুদী , কাফের বা মুশরিক রাষ্ট্রনায়ক কিংবা বিচারক রয়েছেন , আর যদি মুসলমানও থেকে থাকেন , তাও ৭৩ দলে বিভক্ত হয়ে বসে আছেন। মহানবী (সাঃ) বলেছেন , আমার উম্মতেরা আমার পর ৭৩ দলে বিভক্ত হয়ে পড়বে , এদের মধ্যে ১টি দল পরকালে মুক্তি পাবে , আর বাকি দলগুলো পথভ্রষ্ট বা তারা জাহান্নামী হবে। সূত্রঃ- মুসতাদরাকে হাকেম , খঃ-৩ পৃঃ-১০৯। মহানবী (সাঃ) এটাও বলে গেছেন আমার উম্মতের ১টি দল (মাযহাব) সর্বদাই হকের উপর প্রতিষ্ঠিত থাকবে। ”সূত্রঃ-সহীহ্ মুসলিম , খঃ-৫ , হাঃ-৪৭৯৭ , ( , ফাঃ)।

মহানবী (সাঃ) বলে গেছেন একদল ছাড়া সকলে জাহান্নামে যাবে । আবার দেখা যায় কোথাও সুন্নী ’ (হানাফি , মালেকি , শাফাঈ , হাম্বালী) রাষ্ট্রনায়ক কিংবা বিচারক , আবার কোথাও ইসনা আশারীয়া শিয়া ’ (মহানবী (সাঃ) ও তার আহলে বাইত (আঃ)-এর বারো ইমাম-এর অনুসারিগণ) রাষ্ট্রনায়ক বা বিচারক , কোথাও আবার (মুয়াবিয়া ও এজিদ-এর কোরআন পরিপন্থি রাজতন্ত্রী আইন , রাজা-বাদশাদের আইন) , ওহাবী-সালাফী ’ রাষ্ট্রনায়ক বা বিচারক রয়েছেন। কিন্তু প্রশ্ন হলো ? মুসলমানরা কাকে ছড় কাকে আনুগত্য করবে । আর যদি বলা হয় , সকলকেই আনুগত্য করতে হবে! তাও সম্ভব নয়। তাহলে সহজে বুঝা যায় , নিশ্চয়ই এই দুনিয়ার রাষ্ট্রনায়ক বা বিচারক বাদে অন্য কাউকে আনুগত্য করতে বলা হয়েছে এবং তাকে অবশ্যই সব সময় উপস্থীত থাকতে হবে , তা না হলে আল্লাহর এই নির্দেশ অকার্যকর থেকে যাবে । কোরআনে আল্লাহ পাক বলেন , স্মরণ কর , সেদিনের (কিয়ামতের) কথা যখন আমি সকল মানুষকে তাদের ইমামসহ (নেতাসহ) আহবান করব ” ....। (সূরা-বনী ইসরাঈল , আয়াত-৭১) ; আপনি তো কেবল সতর্ককারী মাত্র , আর প্রত্যেক কওমের জন্য আছে পথ প্রদর্শক ” । (সূরা রা ’ দ , আয়াত-৭)

মহানবী (সাঃ) এরশাদ করেছেন , যে ব্যক্তি সময়ের ইমামকে না চিনে বা না জেনে মারা যায় সে জাহলীয়াতে মারা যায় ” ।সূত্রঃ- সহীহ্ মুসলিম , খঃ-৩ , হাঃ- ১৮৫১ (লেবানন) ; মুসনাদে হাম্বাল , খঃ-৪ , পৃঃ-৯৬ ; কানজুল উম্মাল , খঃ-১ , পৃঃ-১০৩ ; তাফসিরে ইবনে কাসির , খঃ -১ , পৃঃ-৫১৭ (মিশর) ; সহীহ্ মুসলিম (সকল খণ্ড একত্রে) পৃঃ-৭৫২ , হাঃ-৪৬৪১ ; ( তাজ কোং) ।

সুতরাং কেউই একমত হবেন না যে , দুনিয়ার কোন রাষ্ট্রনায়ক বা বিচারককে না চিনে বা না জেনে মারা গেলে সে জাহলীয়াতে মারা যায় ” ।সূত্রঃ- কোরআন মাজীদ-হাফেজ মাওলানা সৈয়দ ফারমান আলী , পৃঃ-১৩৮-১৩৯ , ( উর্দ্দু) ; শেইখ সুলাইমান কান্দুযী-ইয়ানাবিউল মুয়াদ্দাত , পৃঃ-১৮৯ , ( উর্দ্দু) ; বেলায়াত সম্পর্কিত আয়াতসমূহের তাফসীর , পৃঃ-৮৭-১০৫ , ( বাংলা) আয়াতুল্লাহ মাকারেম শিরাজি ; কেফাইয়াতুল মোওয়াহহেদীন , খঃ-২ , পৃঃ-১৪১ ; মাজমাউল বয়ান , খঃ-৩ , পৃঃ-৬৪ ; রাওয়ান জাভেদ , খঃ-২ , পৃঃ-৭১ ; বায়ানুস সায়াদাহ্ , খঃ-২ , পৃঃ ২৯ ; তাফসীরে কুম্মী , খঃ-১ , পৃঃ-১৪১ ; শাওয়াহেদুত তানযিল , খঃ-১ , পৃঃ-১৪৮ ; তাফসীরে ফুরাত , পৃঃ-২৮ ; তাফসীরে জাফর , খঃ-১ , পৃঃ-৩০৭-৩০৮ ; তাফসীরে শাফী , খঃ-২ , পৃঃ-৩০৯-৩১৩ ; আল কাফী , খঃ-১ , পৃঃ-২৭৬ ; তাফসীরে আইয়াশী , খঃ-১ , পৃঃ-২৪৭ ; The Holy Quran, Commentary- Tafsir By-Ayalullah Agha Mehdi Pooya & S.V. Mir Ahmed Ali. Page-৩৭৮-৩৭৯ |

হযরত ইমাম জাফর সাদেক (আঃ)-কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল যে , উলিল আমরের ” আদেশ মান্য করা কি অবশ্যই কর্তব্য ? তিনি বললেন: হ্যাঁ , তাঁরা ঐসব ব্যক্তি যাদের আদেশ পালন করা এই আয়াত ( সূরা-নিসা , আয়াত-৫৯) ওয়াজিব করা হয়েছে , আর এই আয়াত আহলে বাইতগণের শানে নাযিল হয়েছে।সূত্রঃ - কওকাবে দুরির ফি ফাযায় েলে আলী , পৃঃ ১৬৫ ; সৈয়দ মোঃ সালে কাশাফী , সুন্নী হানাফী , আরে ফ বিল্লাহ ) ইয়ানাবিউল মাওয়াদ্দাহ্ , পৃঃ - ২১ ; তাফসীরে কাবীর - খঃ - , পৃঃ - ৩৫৭ ; কেফাইয়াতুল মোওয়াহহেদীন , খঃ - , পৃঃ - ১৪১ ; মাজমাউল বয়ান , খঃ - , পৃঃ - ৬৪ ; রাওয়া ন জা ভেদ , খঃ - , পৃঃ - ৭১ ; বায়ানুস সায়াদাহ্ , খঃ - , পৃঃ ২৯ ; তাফসীরে কুম্মী , খঃ - , পৃঃ - ১৪১ ; শাওয়াহে দুত তানযিল , খঃ - , পৃঃ - ১৪৮ ; তাফসীরে ফুরাত , পৃঃ - ২৮

যেহেতু দ্বীন ইসলাম কিয়ামত অবধি স্থায়ী থাকবে এবং রাসূল (সাঃ)-এর পর আর কোন নবীর আগমন হবে না। এই জন্য রাসূল (সাঃ) নিজ দায়িত্ব হতে অব্যাহতি পেতে আল্লাহর নির্দেশে , বারোজন স্থলাভিসিক্ত (ইমামদেরক) মনোনিত করে , তাঁদের নাম উল্লেখ করে যান। নবী (সাঃ) এরশাদ করেন , আমার পর দ্বীন ইসলামকে রক্ষা করতে কুরাইশ-বনি হাশেম হতে বারোজন খলিফা বা ইমাম হবে ” ।

মহানবী (সাঃ) এক হাদীসে বলেছেন যে , আমার পর বারোজন ” ইমাম ( নেতা) হবেন , তাঁরা সবাই বনি হাশেমগণের মধ্যে হতে হবেন।সূত্রঃ-শেইখ সুলাইমান কান্দুযী-ইয়ানাবিউল মুয়াদ্দাত , পৃঃ-৪১৬ (উর্দ্দু)।

(সহীহ্ বুখারীতে) জাবির বিন সামরাহ থেকে বর্ণনা করেছেন যে , তিনি বলেছেন , আমি রাসূল (সাঃ)-এর কাছ থেকে শুনছি যে , তিনি বলেছেন বারোজন আমির ( নেতা) (আমার পরে) আগমন করবে । অতঃপর একটি শব্দ উচ্চারণ করলেন আমি শুনতে পাইনি। আমার পিতা বলেন তিনি [নবী (সাঃ)] বলেছেন তাঁরা সকলে কুরাইশ বংশ থেকে হবেন ” ।সূত্রঃ- সহীহ্ আল বুখারী , খঃ-৬ , হাঃ-৬৭১৬ (আধুনিক) ।

পাঠকদের যাচাই করার জন্য কিছু সূত্র উল্লেখ করলাম , যাতে নিজরাই পরীক্ষা করতে পারেন। পরবর্তীতে বিস্তারিত আলোচনা করছি।সূত্রঃ- সহীহ্ আল বুখারী , খঃ-৬ , হাঃ-৬৭১৬ (আধুনিক) ; সহীহ্ আল বুখারী , খঃ-১০ , হাঃ-৬৭২৯ , ( , ফাঃ) ; সহিহুল বুখারী , খঃ-৬ , হাঃ- ৭২২২ (আহলে হাদীস লাইব্রেরী থেকে প্রকাশিত) ; সহীহ্ মুসলীম , খঃ-৫ , হাঃ-৪৫৫৪ , ৪৫৫৫ , ৪৫৫৭ , ৪৫৫৮ ও ৪৫৫৯ (ই , ফাঃ) ; সহীহ্ আবু দাউদ , খঃ-৫ , হাঃ-৪২৩০-৪২৩১ (ইফাঃ) ; শেইখ সুলাইমান কান্দুযী-ইয়ানাবিউল মুয়াদ্দাত-পৃঃ-৪১৬ (উর্দ্দু)।

হযরত ইবনে মাসউদ (রাঃ) (নবী করিম (সাঃ) -এর বিশিষ্ট সাহাবী) বর্ণনা করেন যে , আমি রাসূলে পাক (সাঃ)-কে জিজ্ঞেস করেছিলাম আপনার পরবর্তীকালে কতজন ইমাম হবেন , মহানবী (সাঃ) বলেন , বনী ইসরাঈলের নবীদের ন্যায় বারোজন হবেসূত্রঃ-আস-সাওয়ায়েকুল মুহরিকা , পৃঃ-১৩ ; মিশরে মুদ্রিত , কওকাবে দুরির ফি ফাযায়েলে আলী , পৃঃ-১৪৪ ; সৈয়দ মোঃ সালে কাশাফী , সুন্নি হানাফী , আরেফ বিল্লাহ)।

আল্লামা কামাল উদ্দিন মোহাম্মদ ইবনে তালহা শাফেয়ী বর্ণনা করেন যে , মহানবী (সাঃ) বলেছেন যে , সমস্ত আয়েম্মাগণ কুরাইশ হতে হবেন। কারণ কুরাইশদের ব্যতিত অন্য কেউ নবী (সাঃ)-এর উত্তরাধিকারী বা ইমাম হতে পারবে না ” ।সূত্রঃ - আল্লামা কামাল উদ্দিন মোহাম্মদ ইবনে তালহা শা ফেয়ী , মাতালেবুস সাউল , পৃঃ - ১৭

আমাদের আহলে সুন্নাতের প্রখ্যাত সুফি আরেফ বিল্লাহ আলেম , আল্লামা সৈয়দ আলী হামদানী শাফায়ী সুন্নি বর্ণনা করেন যে , আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস বলেন , আমি রাসূল (সাঃ)-কে বলতে শুনেছি যে , আমি , আলী , ফাতেমা , হাসান , ও হোসাইন এবং হোসাইন এর পরবর্তী নয়জন সন্তান। পাক পবিত্র ও মাসুম একই গ্রন্থে তিনি আরো বর্ণনা করেন যে , নবী (সাঃ) বলেছেন , আমি সকল নবীদের সরদার (সাইয়্যেদুল আম্বিয়া) এবং আলী সকল ওয়াসীর সরদার (সাইয়্যেদুল আওসিয়া) আর আমার পর বারোজন ” উত্তরসূরী হবে। তাদের মধ্যে প্রথম হচ্ছেন , হযরত আলী ইবনে আবু তালেব ও শেষ হচ্ছেন , ইমাম মাহ্দী , (আখেরউজ্জামান)সূত্রঃ- মুয়াদ্দাতুল কারবা , পৃঃ-৯৮ ; শেইখ সুলাইমান কান্দুযী , ইয়ানাবিউল মুয়াদ্দাত , পৃঃ-৪১৬ , ( উর্দ্দু)।

ইমাম জাফর সাদেক (আঃ) থেকে বর্ণিত যে , নবী করিম (সাঃ) বলেছেন , ইমাম আমার পর বারোজন ” হবে তাঁদের মধ্যে প্রথম আলী এবং শেষ কায়েম মহ্দী হবে , এবং তাঁরা আমার খলিফা , (ওয়াসি) উত্তরাধিকারী ও আমার আউলিয়া এবং আমার উম্মতের উপর আল্লাহর পক্ষ হতে হুজ্জাত (প্রমাণ) যারা তাদেরকে আনুগত্য ও বিশ্বাস করবে , তারা মমিন ও যারা তাদের আনুগত্য ও বিশ্বাস করবে না , তারা অবিশ্বাসী।সূত্রঃ-কওকাবে দুরির ফি ফাযায়েলে আলী , পৃঃ-১৪৩ ; ( সৈয়দ মোঃ সালে কাশাফী , সুন্নি হানাফী , আরেফ বিল্লাহ) ।

ইমাম জয়নুল আবেদীন (আঃ) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন , নবী করিম (সাঃ) ইমাম আলীকে বলেন , আমার আহলে বাইত হতে বারোজন ” লাক হবে যাঁদের আমার জ্ঞান গরিমা দান করা হবে , তাদের মধ্যে তুমি আলী হ চ্ছো প্রথম , ও তাঁদের ১২তম কায়েম ইমাম মাহ্দী আলাইহিস সালাম ” যার দ্বারা আল্লাহ্ ’ তায়ালা এই জমিনকে মাসরিক থেকে মাগরিব পর্যন্ত ইনসাফ কায়েম করবেন। ”সূত্রঃ - কাওকাবে দুরির ফি ফাযায় েলে আলী , পৃঃ - ১৪৩ , সৈয়দ মোঃ সালে কাশাফী , সুন্নি হানাফী , আরেফ বিল্লাহ।

আহলে সুন্নাতের প্রখ্যাত আলেম শেখ সুলাইমান কান্দুজী বলখী , স্বীয় প্রসিদ্ধ গ্রন্থ ইয়ানাবিউল মুয়াদ্দাতে লিখেছেন , মহানবী (সাঃ) এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন , আমার স্থলাভিসিক্ত ইমাম বারোজন হবে। তাদের প্রথম ইমাম আলী ও সর্ব শেষ হবেন ইমাম মাহদী ” । আবার উলিল আমরের সম্পর্কে জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ আনসারী (রাঃ) হতে বর্ণিত যে , জুনদুব ইবনে জুনাদা {আবু যার (রাঃ) }-এর প্রশ্নের জবাবে বলেন যে , আপনার পর কাঁরা আপনার স্থলাভিসিক্ত হবে , তাদের নাম কি ? মহানবী (সাঃ) ইমাম আলী হতে ইমাম মাহদী (আঃ) পর্যন্ত সকলের নাম বর্ণনা করেন। তাদের মধ্যে ১. ইমাম আলী ২. (৯) ইমাম হাসান , ৩. ইমাম হোসাইন , ৪. ইমাম জয়নুল আবেদীন , ৫. ইমাম মুহাম্মদ বাকের , ৬. ইমাম জাফর সাদেক , ৭. ইমাম মুসা কাজিম , ৮. ইমাম আলী রজা , ৯. ইমাম মুহাম্মদ তাকী , ১০. ইমাম আলী নাকী , ১১. ইমাম হাসান আসকারী এবং তাদের মধ্যে ১২. (বারোতম) ইমাম মাহ্দী (আলাইহিমুস সালাম) তিনি আরো বলেন , ওহে জাবের তুমি আমার ৫ম স্থলাভিসিক্ত ইমাম মুহাম্মাদ বাকের-এর সাক্ষাত পাবে , তাকে আমার সালাম পৌছে দিও।সূত্রঃ- ইয়ানাবিউল মুয়াদ্দাত-পৃঃ-৪২৭ ; ( বৈরুত) ইবনে আরাবী- ইবক্বাউল ক্বাইয়্যিম-২৬৬ ; অধ্যায় , মানাকেবে ইবনে শাহরে আশুব , খঃ-১ , পৃঃ-২৮২ ; রাওয়ান যাভেদ , খঃ-২ , পৃঃ-৭২ ; কিফায়া আল আসার , খঃ-৭ , পৃঃ-৭ ; ( পুরোনা প্রিন্ট) কিফায়া আল আসার , পৃঃ-৫৩ , ৬৯ ; ( কোম প্রিন্ট) গায়াতুল মারাম , খঃ- ১০ , পৃঃ-২৬৭ ; ইসবাতুল হুদা , খঃ-৩ , পৃঃ-১২৩ ; হজরত খাজা মঈনউদ্দিন চিশতী (রহঃ)-এর মাজারের প্রধান ফটক পাক-পাঞ্জাতনের নাম ও ১২ ইমামের নাম খোদাই করে লেখা রয়েছে ; এবং মসজিদে নববীর পিলারের চতুরপাশে ১২ ইমামের নাম খোদাই করে লেখা রয়েছে